কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে যে আহবান জানালো ফ্রান্স!!

কাশ্মীর নিয়ে পাক-ভারত উত্তেজনা চলছে। এরই মধ্যে দুই বন্ধু দেশকে উত্তেজনা কমাতে আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপরই ফ্রান্সের পক্ষ থেকে স্থিতিবস্থা ও উত্তেজনা কমাতে পাকিস্তানকে আহ্বান জানানো হয়।

দেশটির পক্ষ থেকে বলা হয়, উত্তেজনা বাড়তে পারে, এমন কোনো পদক্ষেপ বন্ধ করতে এটা খুবই জরুরি। খবর এনডিটিভির।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশিকে ফোন করেন ফ্রান্সের ইউরোপ ও পররাষ্ট্রবিষয়কমন্ত্রী জিন-ইয়ভেস লে ড্রিয়ান। এরপর দেশটির পক্ষ থেকে এক বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, স্থিতাবস্থা রক্ষা, উত্তেজনা কমানো, পরিস্থিতি শান্ত করতে জন্য এক পক্ষকে ফোন করেছে ফ্রান্স। উত্তেজনা বাড়াতে পারে, এমন পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকা খুবই জরুরি।

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা অবলুপ্ত ও দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার ভারতীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পাকিস্তান গোটা বিশ্ব থেকে সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

এদিকে মঙ্গলবার কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার উত্তেজনা অবসানে আবারও মধ্যস্থতা করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিপ্রায়ের কথা জানান তিনি। এর আগে সোমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প কাশ্মীরকে খুবই জটিল এলাকা উল্লেখ করে বলেন, কাশ্মীরকে শান্ত করার প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পেরে আমি খুশি। খবর এএফপির।

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার সংঘাতময় পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিজের সাধ্যমতো চেষ্টা করার কথা জানিয়েছেন ট্রাম্প।

তিনি বলেন, আসলে কাশ্মীর খুবই জটিল একটি জায়গা। সেখানে হিন্দু আছে, মুসলমানও আছে। আমি বলব না যে, তারা সেখানে খুব মিলেমিশে আছে।

আগামী সপ্তাহে ফ্রান্সে সাতটি শিল্পোন্নত দেশের জোটের সম্মেলনে ট্রাম্প ও মোদির সাক্ষাৎ হতে পারে। সেখানে কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কিছুদিন আগে ট্রাম্প বলেছিলেন, যদি ভারত-পাকিস্তান রাজি থাকে, তা হলে আমি কাশ্মীর সংকট সমাধানে মধ্যস্থতা করব।

গত মাসে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেছিলেন- ভারত কাশ্মীর ইস্যুতে তাকে মধ্যস্থতার আহ্বান জানিয়েছে। ভারত অবশ্য পরে ট্রাম্পের এ দাবি নাকচ করে দেয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here