ইরানকে ঠেকাতে চীনকে সঙ্গে চায় যুক্তরাষ্ট্র, কী করবে বেইজিং?

হরমুজ প্রণালীতে কয়েকটি তেলবাহী জাহাজে হামলার ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানের চলমান উত্তেজনার মধ্যে পারস্য উপসাগরের নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে আন্তর্জাতিক জোট গঠনের চেষ্টা করছে ওয়াশিংটন। খবর স্পুটনিক। হরমুজ প্রণালীতে মার্কিন নৌবাহিনী আন্তর্জাতিক জোট গঠন করে তেলের জাহাজকে নিরাপত্তা দেয়া ও ইরানকে কোণঠাসা করা।

চীনা পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পারস্য উপসাগরে জাহাজ চলাচল নিরাপদ রাখতে মার্কিন নেতৃত্বাধীন নৌবাহিনীতে চীনের যোগদানের বিষয় অভিলাষী চিন্তা-ভাবনা ছাড়া আর কিছু নয়।

গ্লোবাল টাইমস পত্রিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চাচ্ছে পারস্য উপসাগরে তেহরান-ওয়াশিংটন উত্তেজনার মধ্যে চীন তাদের সঙ্গে যুক্ত হউক। এ জাতীয় ঘটনা অসম্ভব। এতে ইরান ও চীনের উভয়ের স্বার্থকে বিপদে ফেলবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এটি অবশ্যই অভিলাষী চিন্ত-ভাবনা। ইরান চীনের কৌশলগত অংশীদার। চীন পারস্য উপসাগরে শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় নিবেদিত। এ জাতীয় জোট কেবল ইরান ও চীনের উভয়ের স্বার্থই ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

এর আগে জলদস্যুতা মোকাবেলায় ইরানের সঙ্গে বেইজিংয়ের সফল সহযোগিতা করেছে। এ ছাড়া আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও সুরক্ষা যৌথ প্রচেষ্টা বজায় রেখেছে।

স্পুটনিক বলছে, ওয়াশিংটন পারস্য উপসাগরে তেলের জাহাজগুলোর নিরাপত্তায় আন্তর্জাতিক জোট গঠনের চেষ্টা করছে। সম্প্রতি কয়েক মাসের মধ্যে হরমুজ প্রণালীতে তেলের জাহাজে কয়েকটি হামলার ঘটনায় ওই অঞ্চলটি নিয়ে চিন্তায় রয়েছে মার্কিন জোট। এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র কয়েকটি রাষ্ট্রকে অনুরোধ করে তাদের নৌবাহিনীতে যোগদান করাতে পেরেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here